লেটেস্ট খবরবিনোদনভাইরাললাইফ স্টাইলরেসিপি

Mount Everest: মাত্র ১৬ বছর বয়সে এভারেস্টের শৃঙ্গ জয় করে নিল মুম্বাইয়ের এক তরুণী

Updated on:

WhatsApp Group Join Now

Mount Everest: আমরা সকলেই বিভিন্ন সময় বইয়ের পাতায় বা টেলিভিশনের পর্দায় বিভিন্ন মানুষের এভারেস্ট জয়ের কাহিনী শুনেছি, দেখেছি। আজকে সেরকমই এক এভারেস্ট জয়ীর গল্প আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নেব। তবে এবারের যে এভারেস্ট জয় করেছেন তার বয়স মাত্র ১৬ বছর। শুনে অবাক হচ্ছেন নিশ্চই। এত কম বয়সে কি করে বিশ্বের সবথেকে উঁচু শৃঙ্গ ছুয়ে ফেলল এই অল্প বয়সী তরুণী? জানতে ইচ্ছা করছে নিশ্চয়ই সে কে? চলুন তবে আজকের প্রতিবেদনে তার সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

WhatsApp Group Join Now

১৬ বছর বয়সী সেই এভারেস্ট (Mount Everest) জয়ীর নাম কাম্য কার্তিকেয়ন। মুম্বাইয়ের বাসিন্দা কাম্য খুব অল্প বয়সেই এই শিরোনাম অর্জন করেছে। নেপালের দিক থেকে এভারেস্ট শৃঙ্গের (Mount Everest) চূড়ায় পৌঁছেছেন তিনি। কাম্য দেশের সর্বকনিষ্ঠা এবং দেশের দ্বিতীয় কনিষ্ঠা এভারেস্ট জয়ী হিসেবে নিজের নাম তালিকাভুক্ত করেছে। কাম্যর এই সাফল্যে গোটা পরিবার ভীষণ গর্ব অনুভব করছে। আমাদের দেশের মানুষেরও কাম্যর এই সাফল্যে গর্বিত হওয়া উচিত। কাম্যর বাবা এস কার্তিকেয়ন, ভারতীয় নৌসেনার এক কমান্ডার। এখনো পর্যন্ত কাম্য ছটি পর্বত শৃঙ্গ জয় করেছে এছাড়াও বিশ্বের সাতটি মহাদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গে অর্থাৎ ‘সেভেন সামিট’ চ্যালেঞ্জে কাম্যর পরবর্তী লক্ষ্য অ্যান্টার্কটিকার মাউন্ট ভিনসন ম্যাসিফ।

নৌবাহিনী জানিয়েছে, মুম্বইয়ের নেভি চিলড্রেন স্কুলে দ্বাদশ শ্রেনিতে পড়ে কাম্য কার্তিকেয়ন। জানা গিয়েছে,৩ এপ্রিল বাবার সঙ্গে যাত্রা শুরু করেছিলেন কাম্য। ২০ মে, বাবা-মেয়ের এই জুটি শৃঙ্গ জয় করে। এখন তার এই সাফল্য পরিবারের সকলে মিলেই উদযাপন করছেন। এত অল্প বয়সে যে এভারেস্টের শৃঙ্খে পৌঁছে যাবে কাম্য। সেটা সে নিজেও কল্পনা করতে পারেনি। নিজের এই সাফল্যে কাম্য নিজেও ভীষণ খুশি।

আরও পড়ুন: Summer Vacation: গ্রীষ্মের ছুটির পরেই ছাত্র-ছাত্রীদের অতিরিক্ত ক্লাস নেবার নির্দেশ দেওয়া হল মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে

About Author
Ankana Chowdhury

নমস্কার আমার নাম অঙ্কনা চৌধুরী। আমি বিগত দু'বছর ধরে ডিজিটাল মিডিয়াতে কাজের সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। এই দু বছরে আমি বিভিন্ন ধরনের বিষয়ের উপরে জেনারেল নিউজ লিখেছি। এবং বর্তমানে আমি অনেকটাই কাজ শিখে এই জেনারেল নিউজ লেখায় নিজেকে সাবলীল করে তুলেছি। এই কয়েক বছরে আমার অভিজ্ঞতা ভীষণই ভালো।